ಥ_ಥফুল টাইম ব্লগাররা যেভাবে শরীরের যত্ন নিবেন!ಥ_ಥ By DJ ΛЯIF

ফুল টাইম ব্লগাররা যেভাবে শরীরের যত্ন নিবেন!

আসসালামুয়ালাইকুম,

ব্লগিং আজকের বিশ্বের অনেক মানুষের পছন্দের কাজ। কেউ এটাকে বেছে নিয়েছেন আয় করার উপায় হিসেবে, কেউবা নিয়েছেন পারট টাইম জব হিসেবে আবার কেউ নিয়েছেন শখের বসে। কারণ যাই হোক যদি ব্লগিং এর পিছে মানুষের আগ্রহের কমতি নেই। কেউ নিজেই ব্লগ লিখেন আবার কেউ শুধুই পড়েন। ব্লগিং যারা করেন তারাই মূলত ব্লগার। প্রায় প্রতিনিয়তই মানুষ ব্লগ নিয়ে আগ্রহী হচ্ছে এবং অনেকেই ব্লগার হচ্ছে। ব্লগাররা সবসময়ই নিত্য নতুন বিষয় নিয়ে ব্লগিং এর চিন্তা ভাবনা করেন, কিন্তু এর ফাকে শরীরের প্রতি যত্ন নেয়ার আর সময় থাকে না। কিন্তু শরীরটাও তো জরুরী। ব্লগিং এর নেশায় যে নিজের প্রতি খেয়াল নিবেন না, তা হতে পারে না। শরীর ভালো না থাকলে ব্লগিং করবেন কিভাবে? আমার আজকের টিউনটি মূলত এ নিয়েই, ফুল টাইম ব্লগাররা যেভাবে শরীরের যত্ন নিবেন!

ব্লগাররা শরীর ভালো রাখার জন্য যে যে পদ্ধতি অবলম্বন করবেন তা পর্যায়ক্রমে নিচে তুলে ধরা হলঃ

১. প্রতিদিন সকালে কমপক্ষে ৩০ মিনিট এক্সারসাইজ করবেন, হতে পারে তা হাটা বা হতে পারে দৌড়ানো, চাইলে জিমে গিয়েও ব্যায়াম করতে পারেন।

২.ব্লগিং করার আগে আপনার হাতের জন্য কিছু ছোটখাট ব্যায়াম করে নিন। যেমনঃ আংগুল গুলো বার বার মুঠো করুন আবার খুলুন, এরুপে বেশ কয়েকবার করুন, এতে আঙ্গুলের জড়তা দূর হবে এবং টাইপে সুবিধা হবে।

৩.সকালে কাজ করার পূর্বে অবশ্যই ব্রেকফাস্ট করে নিবেন।

৪.সমান চেয়ারে বসবেন, এবং চেয়ারের সাথে শরীরের সামঞ্জস্য বজায় রাখবেন যাতে শরীর ব্যাথা না হয়।

৫.মনিটরের পাওয়ার যথা সম্ভব কমিয়ে রাখুন বা স্ক্রিন গার্ড লাগান।

৬.মনিটর থেকে আপনার চোখকে কমপক্ষে ১২-১৫ ইঞ্চি দূরে রাখুন।

৭.শক্তি দিয়ে মাউস বা কিবোর্ডের কাজ করবেন না।

৮.একঘণ্টার বেশি কখোনোই একবারে হেডফোন ব্যবহার করবেন না।

৯.যেখানে কম্পিটার ব্যবহার করবেন সেখানে যথেস্ট পরিমাণ আলো নিশ্চিত করবেন, এক্ষেত্রে কৃ্ত্রিম আলোর চেয়ে প্রাকৃ্তিক আলো শ্রেয়।

১০.প্রতি ১ ঘণ্টা কাজের মধ্যে সর্বনিম্ন ৫ মিনিটের বিরতি বাধ্যতামূলক।

১১.বিরতির সময় একটু এক্সারসাইজ বিশেষ করে চোখের এক্সারসাইজ করুন। যেমনঃ বার বার চোখের পাতা খুলুন এবং বন্ধ্ করুন মানে চোখকে পিটপিট করুন, চোখে পানি দিন। বাইরে যদি সূর্য থাকে{দিনে} তাহলে একতু সূর্যের আলোতে আসুন এবং চারপাশে দেখুন। সূর্যের দিকে তাকাবেন না।

১২.মাঝে মাঝে কফি বা চা খাওয়ার চেস্টা করুন, এতে ক্লান্তি কম হবে।

১৩.পানির বোতল সাথে রাখুন। এক্ষেত্রে নরমাল পানি খাবেন, ঠাণ্ডা পানি হতে বিরত থাকুন।

১৪.দূপুরের খাবার যথা সময়ে খেয়ে নিন।

১৫.জড়তা বা একঘেয়েমি কাটাতে মজার ভিডিও দেখুন{ফান ভিডিও, খারাপ কিছু দেখবেন না}, জোক্স পরুন বা গেমস খেলুন।

১৬.সিগারেট সহ যাবতীয় নেশা জাতীয় দ্রব্য হতে বিরত থাকুন।

১৭. কাজ শেষ হয়ে গেলে যত কম সময় পারেন তত কম কম্পিউটার চালান।

১৮.বিকেলে যদি পারেন তাহলে বাহিরে বের হওয়ার চেস্টা করুন, এতে শরীর ও মন দুটোই চাঙ্গা হবে।

১৯.বন্ধুদের সাথে আড্ডা না দিয়ে তাদের সাথে ক্রিকেট, ফুটবল বা নানা রকম আউটডোর গেমস খেলার চেস্টা করুন।

২০.দ্রুত ঘুমানোর চেস্টা করুন। রাত ১১ টায় ঘুমানোর চেস্টা করুন এবং সকাল ৬-৭ টার মধ্যে উঠে পরুন। মিনিমাম ৮ ঘণ্টা ঘুমাবেন। তবে খেয়াল রাখবেন যাতে প্রয়োজনের তুলনায় ঘুম বেশি না হয়।

এছাড়াও আপনি আপনার নিজের সুবিধা মত আপনার শরীরের যত্ন নিবেন, এতে শরীর মন দুটোই ভালো থাকবে। আশা করে সকলের কাজে আসবে। আপনাদের কমেন্টের প্রত্যাশায় রইলাম।

প্রায় সবরকম গানের নিউজ এবং ডাউনলোড লিঙ্ক পেতে এবং আপনার গানের রিকোয়েস্ট করতে জয়েন করুন আমার ফেসবুক গ্রুপ

Level 0

আমি ডিজে আরিফ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 10 বছর 10 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 60 টি টিউন ও 1484 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

আমি আরিফ, সাধারণ একজন আরিফ! চাই অসাধারণ কিছু করতে, সম্ভব কিনা জানিনা কিন্তু ইচ্ছাশক্তির বলে অনেক কিছুই করতে চাই। ব্লগিং - এর সাথে পরিচয় খুব বেশি দিনের না, তবুও বিষয়টাকে ব্যাপকভাবে উপভোগ করছি। ভালো মানের ব্লগার হওয়ার ইচ্ছা আছে। বর্তমানে আমি দশম শ্রেণীতে ঢাকার স্বনামধন্য বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

হা হা
বেশি মজা লেগেছে পানির বোতল দেখে। সুর্যের ছবিওতো দিতে পারতেন। 😛
সুন্দর লিখেছেন।
ধন্যবাদ।

    আসলে বিষয়টা হল যে আমার ক্লাসে যাওয়ার সময় হয়ে যাচ্ছিল তাই দ্রুত করেছি। প্রথমে ছবি ব্যবহার করার ইচ্ছা ছিলনা, কিন্তু পরে মনে হল থাক ছবি ছাড়া দেখতে খাপছাড়া লাগে, তাই দিয়ে দিলাম।

আসলেই সুন্দর পোষ্ট ধন্যবাদ।

ডিজে, তুমি কয়টার সময় ঘুম থেকে ওঠ? ‍ আমার জানামতে তো ব্লগিং করা তোমার খুবই পছন্দনীয়।

    হুম সাইফুল, সাধারণত আমি ৭ টার সময় উঠি, তবে ৫-৬ টা বাজে ওঠার চেস্টা করি, নামাজ পড়ার জন্য, কিন্তু খুব সকালে ওঠা আর হয়ে ওঠে না।

ভালই লাগল,
অনেক গুলু উপকারি উপদেশ,
ধন্যবাদ।

    আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ আতাউর ভাই।

১২.মাঝে মাঝে কফি বা চা খাওয়ার চেস্টা করুন, এতে ক্লান্তি কম হবে।

এই জিনিসটা আমার ক্ষেত্রে কাজ করেনা। দেখা গেল ১ ঘন্টা আগে এক মগ কফি খেলাম। এক ঘন্টা পর ঘুম…. চা/ কফি খেলে আমার বরং ঘুম আরো গাঢ় হয়। ঘুমের ওষুধের জায়গায় আমি কফি খাই। আজব ব্যাপার তাই না??? 🙂

    আসলেই ব্যপারটা অবাক করার মত, কফি খেলে ঘুম পায় এমন কাউকে আজ অব্ধি দেখিনি।

    Level 0

    ফেইসবুক গুরুকে বলছি
    আমার মিতা দেখছি
    একই অবস্থা আমারও, তবে সময়টা আরো কম মানে ১ ঘন্টার চেয়েও কম

হাঃ হাঃ হাঃ…… এইবার ব্লগেও ডাক্তার!!!! ধন্যবাদ! সুন্দর টিউন।

    হাঃ হাঃ একটু আকটূতো করতেই হয়। আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ।

ধন্যবাদ।

good হইচে ভালও লাগ্ল….

পুরাই পাংখা! তেঙ্কু

It’s Help For Be Healthy