বিজ্ঞানের খাতা [পর্ব-৪৬] :: রসায়নে নোবেল পুরষ্কার

বিজ্ঞানের খাতা

বিজ্ঞানের খাতার পাঠকগণ কেমন আছেন। দীর্ঘদিন বিজ্ঞানের খাতা লেখা হয় না। আজকাল লেখালেখির থেকে পড়ছি বেশী। উইকিপিডিয়ায় পড়তে গিয়েছিলাম রসায়নে নোবেল পুরষ্কার কিন্তু বাংলা উইকিপিডিয়ায় এইধরণের কোন লেখাই নেই। ইংরেজী উইকি থেকে তাই বাংলায় লিখে ফেললাম রসায়নে নোবেল পুরষ্কার। আসা করছি জ্ঞান পিপাসু পাঠকদের ভালো লাগবে।

রসায়ন শাস্ত্রের বিভিন্ন শাখায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য রয়েল সুইডিশ একাডেমী অফ সাইন্স বিজ্ঞানীদেরকে প্রতিবছর ‘“রসায়নে নোবেল পুরষ্কার”’ (সুইডিশ Nobelpriset i kemi) প্রদান করে।  ১৮৯৫ সালে  আলফ্রেড নোবেল এর উইল অনুসারে যে পাঁচ শাখায় নোবেল পুরষ্কার দেয়ার কথা তার মধ্যে রসায়ন অন্যতম। বাকি বিষয়গুলো হচ্ছে পদার্থ, সাহিত্য, শান্তি এবং চিকিৎসা। পরবর্তীতে অর্থনীতিকে এই তালিকায় সংযুক্ত করা হয়। এই পুরষ্কারের ব্যাপারটি দেখাশোনা করে  নোবেল ফাউন্ডেশান ।  রসায়ন নোবেল কমিটি’র পরামর্শে রয়্যাল সুইডিশ একাডেমী অফ সাইন্স এই পুরষ্কারটি প্রদান করে। প্রতিবছর নোবেলের মৃত্যু তারিখ ১০ ডিসেম্বর স্টকহোম থেকে রসায়নে নোবেল পুরষ্কার প্রদান করা হয়।  ১৯০১ সালে  নেদারল্যান্ডস এর জ্যাকবস হেনরিকাস ভ্যান্ট হফ কে প্রদান করা হয়।

তথ্য

বিজ্ঞানী  আলফ্রেড নোবেল উইলে তার শেষ ইচ্ছা প্রকাশ করে যান। যারা  পদার্থ,  রসায়ন,  শান্তি।  চিকিৎসা এবং  সাহিত্য তে মানবকল্যাণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন তাদেরকে তার সম্পত্তির একটা অংশ পুরষ্কার হিসেবে প্রদান করা হবে।

নোবেল তার জীবদ্দশায় একাধিক উইল করেছেন। শেষ উইলটি লেখা হয় তার মৃত্যুর বছর খানেক পূর্বে এবং এটি ১৮৯৫ সালের ২৭ নভেম্বর প্যারিসের সুইডিশ-নরওয়েজিয়ান ক্লাবে সাক্ষর করেন।

উইলের বিভিন্ন অসংগতির কারণে ১৮৯৭ সাল পর্যন্ত এই ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। ২৬ এপ্রিল ১৮৯৭ সালে নরওয়ের সংসদ স্টরটিং এটা অনুমোদন করে। নোবেল পুরষ্কার প্রদান ও নোবেলের সম্পত্তি রক্ষণাবেক্ষনের জন্য র‍্যাগনার সলম্যান এবং রুডলফ লিলজেকুইস্ট  নোবেল ফাউন্ডেশান গঠন করেন।

নোবেল তার উইলে নোবেল পুরষ্কার তত্বাবধানের জন্য তিনটি সুইডিশ এবং একটি নরওয়ের প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করে যান। পদার্থ, রসায়ন এবং শান্তিতে পুরষ্কারের বিষয়টি দেখাশোনা করে রয়েল সুইডিশ একাডেমী অফ সাইন্স। অন্যদিকে চিকিৎসাশাস্ত্রের নোবেল ঘোষণা করে ক্যারোলিনস্কা ইনস্টিটিউট এবং সুইডিশ একাডেমীর হাতে আছে সাহিত্যে নোবেল প্রদানের ক্ষমতা। এবং অসলোর নরওয়েজিয়ান  নোবেল কমিটি শান্তিতে নোবেল  পুরষ্কার ঘোষনা করে।

পুরষ্কার বিতরণী

অক্টোবর মাসে নোবেল পুরষ্কারের জন্য নির্ধারিত কমিটি এবং ইনস্টিটিউশান লরেটসগণের নাম ঘোষণা করে। অতঃপর ডিসেম্বর মাসের ১০ তারিখে আলফ্রেড নোবেলের মৃত্যুদিনে আনুষ্ঠানিকভাবে পুরষ্কার প্রদান করা হয়। স্টকহোমে সুইডেনের রাজার হাত থেকে নোবেল লরেটগণ পুরষ্কারগ্রহণ করেন। পুরষ্কারের মধ্যে থাকে একটি সনদ, একটি  স্বর্ণপদক এবং অর্থমূল্যের রশিদ।

প্রতিবছর একটি বিষয়ে সর্বোচ্চ তিনজনকে পুরষ্কার প্রদান করা হয়।

নমিনেশান এবং নির্বাচন

জ্যাকবস হেনরিকাস ভ্যান্ট হফ (১৮৫২-১৯১১) সর্বপ্রথম রসায়নে নোবেল পুরষ্কার লাভ করেন। তার আবিষ্কারের বিষয় ছিলো “দ্যা ল’স অফ কেমিক্যাল ডায়নামিকস এন্ড অসমোটিক প্রেশার ইন সল্যুশানস’’।

রসায়নের অন্য পুরষ্কার সমূহের তূলনায় নোবেল পুরষ্কারের নমিনেশান এবং নির্বাচন খুবই দীর্ঘমেয়াদী এবং জটিল প্রক্রিয়া। মূলত এই কারণেই নোবেল পুরষ্কার রসায়নবিদ বিজ্ঞানীদের কাছে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি পুরষ্কার।  নোবেল সুইডিশ একাডেমী অফ সাইন্স পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি নির্বাচন করে। এই কমিটি রসায়নে নোবেল লরেট নির্বাচন করে। প্রাথমিক ভাবে কয়েক হাজার মানুষ প্রার্থী হিসেবে বাছাই করা হয়। বিশেষজ্ঞদের পর্যালোচনা এবং নিরীক্ষার মাধ্যমে শেষ পর্যন্ত লরেটগণ টিকে থাকেন। এটা খুবই ধীর একটি প্রক্রিয়া।

প্রার্থীদের নাম কখনোই প্রকাশ্যে ঘোষনা করা হয় না। এমনকি প্রার্থীদেরকে জানানো হয় না যে তাদেরকে পুরষ্কারের জন্য নির্বাচন করা হয়েছে।  নমিনেশান রেকর্ড পঞ্চাশ বছরের জন্য সিল করে রাখা হয়।

কমিটি প্রথমদিকে বাছাই করে দুই শতাধিক নামের তালিকা তৈরী করে। এই তালিকা বিশেষজ্ঞজনের কাছে পাঠানো হয়। তারা পঞ্চাশ জনের মত একটি তালিকা তৈরী করে। কমিটি ইনস্টিটিউশানের কাছে পর্যালোচনা রিপোর্ট প্রেরণ করে।

রসায়নের ক্ষেত্রে আবিষ্কারের ২০ বছর পরে সাধারনত পুরষ্কার প্রদান করা হয়। অনেকক্ষেত্রে দেখা যায় পুরষ্কার ঘোষণার আগেই বিজ্ঞানীগণ মারা যান। মৃত ব্যক্তিকে নোবেল পুরষ্কার প্রদান করা হয় না। আবার অনেক ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের জীবদ্দশায় তাদের আবিষ্কারের গুরুত্ব বোঝা যায় না। সেক্ষেত্রে তাদেরকে নোবেল পুরষ্কারের জন্য বিবেচনা করা হয় না। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় রোজালিন ফ্রাংকলিনের  নাম।

পুরষ্কার

রসায়ন নোবেল পুরষ্কারে লরেটগণ অন্য সব লরেটের মত একটি  স্বর্ণপদক, একটি  সনদ এবং  টাকা লাভ করেন।

= নোবেল পুরষ্কার পদক =

নোবেল পুরষ্কার সনদ নোবেল ফাউন্ডেশানের ট্রেডমার্ক। প্রতিটি পদকের সম্মুখভাগে আলফ্রেড নোবেলের প্রতিকৃতি  এবং জন্ম-মৃত্যু তারিখ (১৮৩৩-১৮৯৬) খোদাই করা থাকে।

= নোবেল পুরষ্কার ডিপ্লোমা =

নোবেল লরেটগণ সুইডেনের রাজার কাছ থেকে সরাসরি একটি সনদে লাভ করেন। সনদে  একটি ছবি এবং লরেটের নাম এবং কেন তিনি এটা পাচ্ছেন তা উল্লেখ করা থাকে।

= অর্থ পুরষ্কার =

যখন নোবেল লরেটগণ পুরষ্কার গ্রহণ করেন তখন তাদেরকে কিছু অর্থ প্রদান করা হয়। ২০০৯ সালের তথ্য অনুসারে তখন এই অর্থপুরষ্কারের পরিমান ছিলো ১০ মিলিয়ন সুইডিশ  ক্রোনা বা ১.৪ মিলিয়ন  ইউএস ডলার

লেখাটির উইকি পিডিয়া লিংকঃ https://bn.wikipedia.org/wiki/রসায়নে_নোবেল_পুরষ্কার

আমার উইকিপিডিয়া লিংকঃ https://bn.wikipedia.org/wiki/ব্যবহারকারী:এফ_রহমান

আমার ওয়েবসাইটঃ http://www.frahaman.com

আমার টুইটারঃ http://www.twitter.com/ferd0us

Level 2

আমি সরদার ফেরদৌস। Asst Manager, Samuda chemical complex Ltd, Munshiganj। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 9 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 94 টি টিউন ও 464 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।

আমি ফেরদৌস। জন্ম সুন্দরবনের কাছাকাছি এক জনপদে। ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ থেকে লেখাপড়া করেছি এপ্লাইড কেমিস্ট্রি এন্ড কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে। এরপরে চাকরি করছি সামুদা কেমিকেল কমপ্লেক্স লিমিটেডের উৎপাদন বিভাগে সহকারী ম্যানেজার হিসেবে। এছাড়া আমি বাংলা উইকিপিডিয়ার একজন প্রশাসক।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস