‘দোয়েল’ উড়বে আগামী ৯ অক্টোবর!

টিউন বিভাগ খবর
প্রকাশিত

দায়িত্বপ্রাপ্ত রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান টেলিফোন শিল্প সংস্থা (টেশিস) নিশ্চিত করে জানিয়েছে, ”সরকারি কম মূল্যের ল্যাপটপ ‘দোয়েল’ বাজারে আসার জন্য এখন পুরোপুরি প্রস্তুত। বাকি কেবল উদ্বোধনের আনুষ্ঠানিকতা। আগামী মাসের মধ্যভাগের আগেই (সম্ভাব্য তারিখ ৯ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রী এটি উদ্বোধন করবেন।”

তৈরির কারিগররা

১৯৬৭ সালে প্রতিষ্ঠিত টেশিসে একসময় শুধু টেলিফোন সেট উৎপাদিত হতো। তবে এ কাজের ক্ষেত্র কমে আসায় টেশিসের মাধ্যমে নতুন সব উদ্যোগ গ্রহণ করছে সরকার। তারই একটি ল্যাপটপ তৈরি প্রকল্প। টেশিস সূত্র জানায়, এই ল্যাপটপ তৈরির জন্য প্রাথমিকভাবে ১৪৮ কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। টেশিসের গাজীপুর কারখানায় গত ১০ জুলাই দোয়েলের পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু হয়। ল্যাপটপটির উন্নয়ন এবং গবেষণার কাজে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় বা বুয়েট এবং মালয়েশিয়ান প্রতিষ্ঠান ‘থিম ফিল্ম ট্রান্সমিশন’ বা টিএফটিসহ কয়েকজন বিদেশি বিশেষজ্ঞের সহায়তা থাকলেও এর নকশা, গবেষণা এবং উন্নয়নের কাজ করেছে দেশীয় প্রতিষ্ঠান ‘গণনা টেকনোলজিস’।

দোয়েল ল্যাপটপের কনটেন্ট প্রস্তুতকরণ, অপারেটিং সিস্টেম অনুবাদকরণ থেকে শুরু করে এর সব পরিকল্পনার কাজও করেছে প্রতিষ্ঠানটি। গণনা টেকনোলজিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল চৌধুরী শারুন জানান, ‘সরকারিভাবে এ ল্যাপটপ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে, যাতে একেবারে গ্রামপর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তি সেবা পেঁৗছে দেওয়া যায়। একজন গ্রামের মানুষ যাতে সহজেই এ ল্যাপটপের সবকিছু বুঝতে পারেন সে জন্য আমরা কাজ করছি। এর অপারেটিং সিস্টেমসহ অন্যান্য সুবিধা বা অ্যাপ্লিকেশনগুলো এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে, যাতে কারো কাছে এটি কঠিন না মনে হয়।’





আসছে চারটি ভিন্ন মডেলে

টেশিস সূত্র জানায়, আসলে সব ধরনের গ্রাহকের চাহিদা একরকম নয়, একেকজন ল্যাপটপে একেক ধরনের কাজ করে থাকেন। এ জন্য চাহিদার ওপর ভিত্তি করে আমরা চারটি ভিন্ন মডেলে ‘দোয়েল’ ল্যাপটপ বাজারে আনছি। আর কনফিগারেশনের ওপর ভিত্তি করে মডেলগুলোর দামেও বেশ পার্থক্য রয়েছে। মডেলগুলো হলো

‘দোয়েল প্রাথমিক ২১০২’, ‘দোয়েল বেসিক ০৭০৩’, ‘দোয়েল স্ট্যান্ডার্ড ২৬০৩’ এবং ‘দোয়েল অ্যাডভান্স ১৬১২’।

‘দোয়েল প্রাথমিক ২১০২’

মডেলটিতে রয়েছে ১০ ইঞ্চি এলসিডি প্যানেল, ৫১২ মেগাবাইট র‌্যাম, ০.৩ মেগাপিক্সেল ইন্টিগ্রেটেড ওয়েবক্যাম, ওয়াইফাই সংযোগ সুবিধা, ইথারনেট লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্কিং সুবিধা, ২ ইউএসবি ২.০ পোর্ট এবং ৩২ গিগাবাইট পর্যন্ত ধারণক্ষমতার এসডি স্লট। এর অপারেটিং সিস্টেস হিসেবে রয়েছে গুগলের ‘অ্যানড্রয়েড’।

 

‘দোয়েল স্ট্যান্ডার্ড ২৬০৩’

মডেলে ১২.১ ইঞ্চি ডাবি্লউএক্সএ এলইডি ব্যাকলাইট, ইনটেল অ্যাটম প্রসেসর, ইনটেল এনএম ১০ এক্সপ্রেস চিপসেট, ইন্টেল জিএমএ ৩১৫০ ইন্ট্রিগ্রেটেড গ্রাফিক্স, ২ গিগাবাইটের ডিডিআর থ্রি র‌্যাম, ২৫০ গিগাবাইট সাটা হার্ডডিস্ক ড্রাইভ, ১.৩ মেগাপিক্সেলের ওয়েবক্যাম, ওয়াইফাই, লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্কিং সমর্থন এবং তিনটি ইউএসবি ২.০ পোর্ট। এরও অপারেটিং সিস্টেম ‘লিনাক্স’।


‘দোয়েল অ্যাডভান্স ১৬১২’

মডেলটি উচ্চ-কনফিগারেশনে তৈরি করা হয়েছে। এতে রয়েছে ১৪ ইঞ্চি ডাবি্লউএক্সএ এলইডি ব্যাকলাইট, ইন্টেল পেন্টিয়াম প্রসেসর, ইন্টেল এইচএম ৫৫ চিপসেট, ২ গিগাবাইটের ডিডিআরথ্রি র‌্যাম, ৩২০ গিগাবাইট সাটা হার্ডডিস্ক ড্রাইভ, স্যামসাং ডিভিডি রাইটার, ১.৩ মেগাপিক্সেলের ইন্ট্রিগ্রেটেড ওয়েবক্যাম, লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্কিং সুবিধা এবং তিনটি ইউএসবি ২.০ পোর্ট। এর অপারেটিং সিস্টেমও লিনাক্স।


দরদাম

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু সম্প্রতি গণমাধ্যমকে জানান, কনফিগারেশনের ওপর ভিত্তি করে ল্যাপটপের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। দোয়েল প্রাথমিক মডেলের সম্ভাব্য দাম ১০ হাজার, ‘দোয়েল বেসিক’ ১২ হাজার, ‘দোয়েল স্ট্যান্ডার্ড’ ২১ হাজার এবং ‘দোয়েল অ্যাডভান্স’ মডেলটি ২৫ হাজার টাকায় বাজারে পাওয়া যাবে। তবে টেশিসের পক্ষ থেকে জানা গেছে, এই দাম এখনো নিশ্চিত নয়। তবে উলি্লখিত দামের খুব বেশি হেরফের হওয়ার আশঙ্কা কম। প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধনের সময়ই চূড়ান্ত দাম ঘোষণা করবেন।

যা থাকছে দোয়েলে

প্রতিটি দোয়েল ল্যাপটপের সঙ্গে বিশেষ অনূদিত অপারেটিং সিস্টেমসহ ব্যবহারকারীর প্রয়োজনীয় সাধারণ সব সফটওয়্যারই স্থায়ীভাবে (বিল্ট-ইন) দেওয়া হবে। এর মধ্যে রয়েছে লেখালেখির সফটওয়্যার ওপেন অফিস, ছবি সম্পাদনার সফটওয়্যার গিম্পসহ উবুন্টুর প্রায় সব সফটওয়্যার। সাধারণ ব্যবহারকারীর কথা মাথায় রেখে এসব সফটওয়্যার বিশেষভাবে অনুবাদ করা হয়েছে। বাংলা লেখালেখির জন্য এতে যুক্ত করা হয়েছে জাতীয় কিবোর্ড লে-আউট। গ্রামের সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে এতে সরকারি ‘কৃষি তথ্য সার্ভিস’ এবং জাতীয় ‘ই-তথ্যকোষ’ অ্যাপ্লিকেশন আকারে যুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া দোয়েলের নিজস্ব ব্র্যান্ডিংয়ে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজ এবং প্রথম থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত সব পাঠ্যবইও যুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। আর ল্যাপটপের সবগুলো ফিচার সহজে বোঝার জন্য এতে ৫২ থেকে ৫৪ পৃষ্ঠার একটি বিশেষ ম্যানুয়াল দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

প্রতি মাসে ১০ হাজার

ল্যাপটপ তৈরিতে নানা সীমাবদ্ধতার কারণে প্রতি মাসে মাত্র ১০ হাজার ল্যাপটপ বিক্রির জন্য বাজারে ছাড়বে টেশিস। প্রথম মাসে বাজারে ছাড়ার জন্য ইতিমধ্যে ১২-১৩ হাজার ল্যাপটপ তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ল্যাপটপ প্লান্ট প্রকল্পের প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) নাজিব হাসান। তিনি বলেন, ‘আমরা ক্রেতাদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে উৎপাদন আরো বাড়াব, তবে এ জন্য মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত দরকার। আপাতত প্রতি মাসে ১০ হাজারের বেশি ল্যাপটপ বাজারে আনা সম্ভব হবে না। বর্তমানে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের জন্য ৫০ থেকে ৬০ হাজার ল্যাপটপের চাহিদা রয়েছে, এ চাহিদা পূরণের জন্যও আমাদের ব্যাপক উৎপাদনে যেতে হবে। তবে উৎপাদন বাড়ানো এবং এগুলো বাজারে ছাড়ার বিষয়গুলো নির্ভর করছে মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের ওপর।’ মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে কোনো নির্দিষ্ট সিদ্ধান্ত দেয়নি বলে জানান তিনি।

প্রশ্নবিদ্ধ অপারেটিং সিস্টেম

দোয়েলের চারটি মডেলেই বিনা মূল্যের এবং ওপেনসোর্স অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে। মূলত দাম কম রাখার জন্যই ওপেনসোর্স অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। তবে টেশিস চাইলে কম মূল্যেই উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করতে পারত বলে তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ মনে করেন।
বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি মোস্তাফা জব্বার এ প্রসঙ্গে বলেন, ”সরকারি এ কম মূল্যের ল্যাপটপ আনা হয়েছে যে শ্রেণীর মানুষের জন্য তারা ওপেনসোর্স লিনাক্স বা অ্যানড্রয়েড বুঝবেন কি না তা একবারও ভেবে দেখা হয়নি। সাধারণ মানুষ উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমেই অভ্যস্ত। ওপেনসোর্স অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করে তারা বাস্তবতাবর্জিত একটি পদক্ষেপ নিয়েছেন। সরকার চাইলে তো মাইক্রোসফটের কাছ থেকে অনেক কম মূল্যেই ‘বাল্ক’ হিসেবে অপারেটিং সিস্টেম কিনতে পারত। আর এ অল্প টাকা ল্যাপটপের দামের সঙ্গে যুক্ত হলে ক্রেতাদের খুব বেশি সমস্যা হতো না। কিন্তু সম্পূর্ণ অপরিচিত এ অপারেটিং সিস্টেমটি দেখে কম্পিউটারকে ‘কঠিন’ বলে মনে করবেন সাধারণ ব্যবহারকারীরা। তাদের মধ্যে কম্পিউটার-ভীতি তৈরি হবে বলে মনে হচ্ছে।”
তবে দোয়েলের প্রোগ্রাম পরিকল্পক এবং ডিজাইনার নাজমুল চৌধুরী শারুন বলেন, ‘আমরা লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করলেও এটি এমনভাবে কাস্টোমাইজ এবং বাংলায় অনুবাদ করা হয়েছে, যাতে একজন সাধারণ মানুষও নূন্যতম কম্পিউটার জ্ঞান দিয়েই এটি ব্যবহার করতে পারেন। ব্যবহারকারীরা এটি উইন্ডোজের চেয়ে আরো সহজে বুঝতে পারবেন_অন্তত এ নিশ্চয়তা আমরা দিতে পারি।’
এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ওপেনসোর্স নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান বলেন, ‘অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে উইন্ডোজ ব্যবহার করলে ল্যাপটপের দাম প্রায় চার হাজার টাকা করে বেড়ে যেত। ফলে ক্রেতারা বেশ সমস্যায় পড়তেন। আর মুক্ত অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করতে যে সমস্যা নেই তার প্রমান অ্যান্ড্রয়েডযুক্ত স্মার্টফোনগুলো। বাংলাদেশের সাধারণ ব্যবহারকারীরা এ স্মার্টফোনগুলো সহজভাবেই নিয়েছেন। এগুলো ব্যবহারে তাদের কোনো সমস্যা হচ্ছে না। তাই মুক্ত অপারেটিং সিস্টেমযুক্ত ল্যাপটপ ব্যবহারে কারো সমস্যা হওয়ার কথা নয়।’

আসছে আগামী মাসেই

ইতিমধ্যে এ ল্যাপটপ বাজারে ছাড়ার সব প্রস্তুতিই সম্পন্ন করা হয়েছে। এখন কেবল প্রধানমন্ত্রীর অনুমতির জন্যই অপেক্ষা করতে হচ্ছে বলে সম্প্রতি গণমাধ্যমকে জানান রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু। তিনি জানান, আড়াই বছর ধরে এ ল্যাপটপ বাজারজাত করার জন্য কাজ চলছে। দোয়েল ল্যাপটপ এখন সম্পূর্ণ প্রস্তুত। এখন শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য আবেদন পাঠানো হয়েছে। তিনি অনুমোদন দিলেই দ্রুত বাজারজাত করা হবে এই ল্যাপটপ।
টেশিস-সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দিনক্ষণ নিশ্চিত না হলেও আগামী ৯ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীর ‘দোয়েল’ উদ্বোধনের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে এটি বাজারে আসবে।
কম মূল্যের এ ল্যাপটপ বাজারে এলে দেশের তথ্যপ্রযুক্তিতে স্বর্ণযুগের সূচনা হবে মনে করছেন তথ্যপ্রযুক্তি-সংশ্লিষ্টরা। নতুন এ ল্যাপটপটি হাতে ছুঁয়ে দেখার আশায় আছেন সরকারি-বেসরকারি সব মহলের মানুষই।

 

তথ্যসূত্র এবং পূর্নাঙ্গ স্পেসিফিকেশন

Level 0

আমি Ripendil। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 11 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 42 টি টিউন ও 140 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

আশায় রইলাম। তথ্য বহুল পোস্ট। ধন্যবাদ ভাই।

ভাই দোয়েল আবার উড়ে যাবে নাতো ?

জব্বার কে ইচ্ছা মত পিটানো দরকার, যেখানে মানুষের ১০ হাজার টাকায় ল্যাপ্টপ কিনতে পারবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ দেখা যায় সেখানে আবার ৪ হাজার টাকায় উইন্ডোস কিনার পরামর্শ দেয় !!!

    Level 0

    একমত। কিন্তু উপরের ছবিতে উইন্ডোজ ৭ দেখা পাচ্ছি

    @উদাসী মিরাজ: আপনার সাথে আমি সম্পূর্ণ একমত । ব্যাটা তো দেখি মহা ফাজিল..অনেক অবৈধ টাকা কামাইসে তো তাই টাকা গায়ে লাগে না…

সুন্দর সুন্দর !!!

Level 0

জব্বার কাগুরে যে কি করা উচিত । কাগুর জ্বলতাছে কারন, কাগুর বিজয় নাই তো দোয়েলে । অভ্র জয় হোক । ওপেন সোর্সের জয় হোক ।

    @Basicali: আসলেই উনার গা জ্বলছে। তার এক কথার সাথে আরেক কথার কোন মিল নেই। একবার বলেন গায়ের মানুষ উইন্ডোজে গায়ের মানুষ অভ্যস্ত আরেকবার বলেন কম্পিউটার ভিতি তৈরী হবে। কম্পিউটার যারা আগেই ইউজ করেছে তারাইতো উইন্ডোজে অভ্যস্ত, তাদের আবার কম্পিউটার ভিতির কী আছে? আবার নতুনরাতো আর উইন্ডোজে অভ্যস্ত না যে তাদের অসুবিধা হবে।

    আমি মনে করি ওপেন সোর্সে নজর দেয়া একটা বিরাট ভাল পদক্ষেপ। কারন এতে করে মানুষ ওপেন সোর্সে এবং ফ্রী সফটওয়্যারের সাথে পরিচিত হবে। আর উইন্ডোজের মত যদি লিনাক্সও কমন হয়ে যায় তাহলেই একে আর কেউ ভয় পাবেনা।

    তবে এন্ড্রয়েড ব্যবহারের কী সুবিধা সেটাও আমি বুঝলাম না। কারন এতে অনেক অসুবিধা দেখতে পাচ্ছি যেসব কারনে হয়তো অনেকে কম্পিউটার থেকে লিনাক্স ফেলে দিবে। আসলে এন্ড্রয়েড মোবাইল বা ট্যাবলেটের জন্য ভাল। কিন্তু এসব ক্ষেত্রে অন্য কোন ডিস্ট্রো যা সচরাচর ব্যবহার হয়(যেমন মিন্ট) ব্যবহার হলে বেশি সুবিধা হত। কারন এসবে ড্রাইভার সাপোর্ট ভাল। আমি ঠিক ভাবে জানিনা তবে এন্ড্রয়েড কী ডিফিউল্ট ভাবে এসব সাপোর্ট করবে? মনে হয়না। তাছাড়া লিনাক্স মিন্ট ব্যবহার করলে আরও অনেক কিছু কাস্টমাইজ করতে হত না। আর উবুন্তুর রিপোতে কম্পিউটারে ব্যবহারের হাজার হাজার সফটওয়্যার থাকলেও এন্ড্রয়েডের সবই মোবাইল উপযোগি। মোট কথা আমার মনে হচ্ছে এটাতে কম্পিউটার ব্যবহারের স্বাদ পাবেনা।

Level 0

ধন্যবাদ ।তবে আমার ধারনা স্মার্টফোন হিসেবে ১০হাজার টাকার দোয়েল (DELL~DOEL) ই বেশি চলবে ।আর যাদের কম্পিউটার সত্যিকারের প্রয়োজন তাদের জন্য ২০/২৫হাজারটাকা ম্যানেজ করা কোন বিষয় না।একটু বাস্তবমুখী ভেবে দেখুন টাকার মুল্য কত কম !

জব্বার কাগুর ‘বিজয়’ এইবার পরাজয় বরণ করছে। আহারে….

Level 2

Doel Doel chai chai

Valo valo,Opekhia thaklam

Level 2

জব্বার কাগুর ‘বিজয়’ এবারো বিক্রি হলোনা বলেই কি উনি রাগ করেছেন নাকি ভাই??????

Level 0

কাগুর তো রাগ হবে।তার বিজয় বিক্রি হয়নায়।।!!!!!!হি হিঃঃ

জব্বার কাগুরে জানানো উচিত যে আমরা যদি আগে লিনাক্স ব্যবহার করতাম তাহলে আমাদের এই ভিতি থাকতো না। যারা নতুন তারা উইন্ডোজে না গেলেই ভালো।

    @বাতাশঝড়: সহমত। এখন থেকে লিনাক্সে অভ্যস্ত হলে ভবিষ্যতে অনেক সুবিধা হবে। কম মূল্যে কম্পিউটার সবার কাছে পৌছে দিতেইতো দোয়েল, তাহলে সফটওয়্যারে পয়সা খরচ করার টাকা কোত্থেকে আসবে?

আমি যতটুকু জানি , এতে চাইলে উইনডোস ৭ ব্যবহার করা যাবে। তবে যত যাই হোক দেশি পন্য, কিনে হও ধন্য। তবে এর মাধ্যমে বাজারে একটা নিশ্চিত প্রতিযোগিতা তৈরি হবে। যেটা সবার জন্যই ভাল হবে। এর ব্যাটারির চার্জ কেমন হবে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

    Level 0

    Bettary backup 3hrs

    Level 0

    @আবদুল বাকী: চাইলেতো ব্যাবহার করা যাবেই, তবে বাই ডিফল্ট দেয়া হয়নি কারন তাতে দাম বেড়ে যাবে।

লিনাক্স দিয়ে অবশ্যই ভাল একটা কাজ হয়েছে। এ বিষয়ে মানুষের ধারনা বৃদ্ধি পাবে। 🙂
শুভ কামনা রইল দোয়েলের প্রতি

Level 0

shob bhalo kaje bagra dear kichhu lok thake,eikhane jobbar hoilo shei lok , বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির ki nirbachon hoyna? shei kobe theke shunchhi ei lok okhankar shovapoti, ki ekta obostha…………BD te mukto software probortoner ekmatro badha ei lok ta

আমি লিনিক্স এ কন অভিজ্ঞতা নেই তাই কিচু বলতে পারচিনা…। তবে এক্তা কথা জানার চিল এতাতে কি উইন্ডোজ বেবহার করা যাবে। চবিতে ত উইন্ডোজ ৭ দেখাচ্চে

আমারও একি প্রশ্ন লিনাক্স বাদ দিয়ে ৭ লাগানো যাবে কি ? আর আমি একটা পরে ৭ দিয়ে ২য় হাত কিনে নিব 😛

‘দোয়েল স্ট্যান্ডার্ড ২৬০৩’ এ উইন্ডোজ ৭ স্টারটার এডিশন এবং ‘দোয়েল অ্যাডভান্স ১৬১২’ এ উইন্ডোজ ৭ স্টারটার/ হোম বেসিক/ হোম প্রিমিয়াম ইউজ করা যাবে। চাইলে এক্সপি ও ভিস্তাও ইনস্টল করা যাবে। এক্ষেত্রে চিপসেট, ডিভাইস অনুযায়ী নেট থেকে ড্রাইভার ডাউনলোড করে নিতে হবে। তবে দোয়েল এ ওপেন সোর্স OS ইনস্টল দেওয়াতে ভালোই লাগলো। এতে করে আমাদের মত গরীব মানুষদের মধ্যে পাইরেসির ব্যবহার না কমলেও ওপেন সোর্স অ্যাপ্লিকেশনগুলো সম্বন্ধে ধারণা পাওয়া যাবে। দোয়েলের জন্য শুভকামনা…

যাক অবশেষে ১০ হাজার টাকার ল্যাপটপ আসতেছে , অনেক দিন ধরে অপেখায় আছি…জয় হোক দোয়েলের

অপেক্ষায় আছি।ভালো সার্ভিস দিলেই হলো ।
Virtual DJ ডাউনলোড করুন এখান থেকে।এটা নিয়ে খুব শিঘ্রই টিউন করবো।
http://goo.gl/hcejc

Level 0

ভালো খবর

darun post

মস্তফা জব্বার মানুষ টা ভ্যাজাল। কোথায় লিনাক্স ব্যাবহারে উতসাহিত করবে টা বাদ দিয়া ভয় দ্যাখায়//////

Level 0

এই ধরনের কথাবার্তা সাধারনত দালালদের মুখেই শুনা যায়।
আর দেশের মানুষ যদি প্রযুক্তিগতভাবে এগিয়ে যায় তাহলেতো কিছু শ্রেণীর মানুষের আয় বন্ধ হয়ে যাবে তাই।