সেরা অপরিচিত ইন্টারনেট ব্রাউজার

ওয়েব ব্রাউজারের কথা যখন আসে তখন মূলত ক্রোম, ফায়ারফক্স আর অপেরার কথাই মনে পড়ে। পিসিতে এই তিনটি ব্রাউজার আর অ্যান্ড্রয়েডে ইউসি ব্রাউজার আমরা বেশি ব্যবহার করে থাকি। এছাড়াও মাইক্রোসফট এডজ কিংবা ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহারকারীদেরও মাঝে মাঝে দেখা যায়। কিন্তু দুনিয়াতে এই কটি ব্রাউজার ছাড়াও আরো বেশ কয়েকটি চমৎকার এবং সুন্দর ব্রাউজার রয়েছে। হয়তো সেগুলো আমরা কিংবা আমাদের আশেপাশের কেউ ব্যবহার করে না বলে তাদের সম্পর্কে আমরা জানিও না!

আমি উপরে ভিডিও যুক্ত করে দিয়েছি। কোন ব্রাউজারটি আসলে কেমন তা একেবারে ঠিকঠাকমত জানতে দেখে নিতে পারেন ভিডিওটি।

 

অপেরা নিওন

অনেক আগে আমি নিজেই ওপেরা ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করতাম, কিন্তু বিশেষ করে ফায়ারফক্স আর ক্রোমের এই যুগে ওপেরা আর ব্যবহার করা হয়ে উঠে না। কিন্তু ২০১৭ সালের শুরুর দিকে ওপেরা ব্রাউজারের নতুন সংস্করণ Opere Neon বাজারে ছাড়ে ওপেরা কোম্পানি। ওপেরা কোম্পানি ব্রাউজার জগতে নিজেদের আবারো প্রতিষ্ঠিত অবস্থায় দেখার জন্য তাদের এই নতুন সংষ্করণটি বাজারে ছেড়েছিল।

এই ব্রাউজারে ব্যবহার করা হয়েছে Blink Rendering Engine যেটি দিয়ে অফিসিয়াল অপেরাও বানানো হয়ে থাকে। ব্যবহারকারীদেরকে আকর্ষণ করার জন্য ব্রাউজারটিতে বেশ কিছু ইউনিক নতুন ফিচার আনা হয়েছে। যারা আগে ওপেরা ব্যবহার করতেন বা যারা এখনো ওপেরা ব্যবহার করেননি তাদের সবাইকেই অপেরার এই নতুন সংস্করণের ব্রাউজারটি একবার পরখ করে দেখার অনুরোধ রইলো।

 

ভিভাল্ডি

Vivaldi ব্রাউজার হচ্ছে একটি নতুন ব্রাউজার যেটিতে Chromium প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। মানে এতে আপনি ক্রোমের মতোই মজা পাবেন কিন্তু ব্রাউজারটিতে ক্রোমের থেকেও বেশ কটি ইউনিক ফিচার রয়েছে। এই ব্রাউজারটিতে প্রায় সবকিছুই নিজের মতো করে কাস্টমাইজ করে নিতে পারবেন। এছাড়ার নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে ঢুকলে ব্রাউজারের থিম কি হবে সেটাও আপনি ঠিক করে দিতে পারবেন। মানে এক এক ওয়েবসাইটের জন্য এক এক রকমের থিম! ব্যাপারটা বেশ চমৎকার!

ম্যাক্সথন

ম্যাক্সথন ব্রাউজারটি তার ইউনিক ফিচার ক্লাউড বেইসড একাউন্ট নিয়ে বেশ প্রচারণা চালাচ্ছে। তাদের এই ক্লাউড বেইসড একাউন্ট দিয়ে আপনি আপনার সকল ডিভাইসের ডাটা একসাথে সিঙ্ক করে নিতে পারবেন। এছাড়াও তাদের এই ক্লাউড সার্ভিসের রয়েছে একটি ফিচার যার নাম ক্লাউড পুশ যেটার মাধ্যমে আপনি যেকোনো কনটেন্ট আপনার বন্ধুদের সাথে ইমেইল বা টেক্স মেসেজের সাহায্যে শেয়ার করতে পারবেন।

ম্যাক্সথন ব্রাউজারে রয়েছে বিল্ট ইন RSS reader, নোটপ্যাড, পাসওর্য়াড ম্যানেজার, ভাচুর্য়াল মেইনবক্স এবং একটি এডব্লক প্লাস। এছাড়াও ব্রাউজারে রয়েছে একটি Reader Mode যেটার মাধ্যমে যেকোনো আর্টিকেল সাচ্ছন্দ্যে পড়তে পারবেন। ম্যাক্সথন ব্রাউজারে একই সাথে দুটি ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়েছে একটি হচ্ছে Trident এবং আরেকটি হচ্ছে WebKit, যেগুলো ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার এবং সাফারি ব্রাউজারে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

টর্চ

Torch হচ্ছে আরেকটি Chromium ভিক্তিক ওয়েব ব্রাউজার সেটি বিশেষ ভাবে মিউজিক এবং গেমিংয়ের জন্য নির্মিত হয়েছে। ব্রাউজারে রয়েছে একটি বিল্ট ইন ইউটিউব বেইসড স্ট্রিমিং সার্ভিস যার নাম Torch Music। Torch Games সার্ভিসটি আপনাকে বিভিন্ন ওয়েব ভিক্তিক গেমসে এক ক্লিকে একসেস দিবে। এছাড়াও ব্রাউজারটিতে রয়েছে সহজলভ্য ড্রাগ এন্ড ড্রপ ফিচার। ব্রাউজারটিতে রয়েছে বিল্ট ইন্ট টরেন্ট ডাউনলোডার! অর্থাৎ যারা টরেন্ট ব্যবহার করেন তাদেরকে টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড করার জন্য এক্সট্রা কোনো অ্যাপস ব্যবহার করতে হবেনা। একটু ব্যতিক্রমী ধর্মী ব্যবহারকারীদের কাছে টর্চ ব্রাউজারটি বেশ ভালোই লাগবে!

এপিক প্রাইভেসি ব্রাউজার

আপনি যদি গুগল ক্রোমকে পছন্দ করেন কিন্তু গুগলের যাবতীয় বিজ্ঞাপণের জ্বালাতনে ভুগছেন তারা এই Epic Privacy Browser টি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। গুগল ক্রোমের সাথে বিশেষ কোনো পার্থক্য না থাকলেও প্রাইভেসি রক্ষার জন্য ব্রাউজারটিতে বিশেষ কিছু ফিচার রয়েছে। যেমন বিল্ট ইন প্রক্সি, অলওয়েজ অন প্রাইভেট ব্রাউজিং, বিল্ট ইন ব্লকারস এবং বিল্ট ইন ভিডিও ডাউনলোডিং টুল যার মাধ্যমে আপনি ভিডিও ডাউনলোড করতে পারবেন অতিরিক্ত কোনো সফটওয়্যার ছাড়াই! তো যারা প্রাইভেসি নিয়ে বেশিই সেন্সিটিভ তারা এই ব্রাউজারটি পরখ করতে দেখতে পারেন।

পেল মুন

ফায়ারফক্সের একদম পুরাতন সংষ্করণটি আপনার ভালো লাগতো? কিংভা পুরাতন সংস্করণটি মিস করেন এখনো?

দেখতে পুরাতন ফায়ারফক্স এর মতো হলেও নতুন সব ফিচার নিয়ে Pale Moon ব্রাউজারটি এখন বাজারে রয়েছে। ব্রাউজারটি আগে Fork ব্রাউজার নামে বাজারে ছিলো।

নামে ভিন্ন হলেও কাজে একই এই ব্রাউজারটির ইঞ্জিন হলো Goanna যেটি ফায়ারফক্স লেগেসিতে ব্যবহৃত হতো। পুরাতন ইঞ্জিন আর পুরাতন ফায়ারফক্স মনে হলেও কাজে কিন্তু একেবারেই নতুন। এই ব্রাউজারে আপনি old-school add-ons গুলো এখনো ব্যবহৃত করতে পারবেন!

 কমন্ডো আইস ড্রাগন

বেশ নামও বটে! কমোন্ডো হচ্ছে একটি সিকুরিটি ফার্ম আর আইস ড্রাগন হচ্ছে তাদের তৈরী একটি ব্রাউজার সেখানে সিকুরিটিকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। যারা ব্রাউজারের সিকুরিটি নিয়ে বেশ চিন্তায় থাকেন তারা নিশ্চিন্তে এই সিকিউর ব্রাউজারটি ব্যবহৃত করতে পারেন।

ব্রাউজারটিতে রয়েছে বিল্ট ইন ওয়েবপেজ স্ক্যানার রয়েছে, রয়েছে কমোন্ডোর সিকুউর ডিএনএস সার্ভিস এবং ফিশিং অ্যান্ড স্প্যাইওয়্যার সাইট থেকে অটো ব্লকিং তো রয়েছেই! ফায়ারফক্সের উপর নির্মিত এই ব্রাউজারটিতে ফায়ারফক্স এর মতোই আপনি সকল সুবিধা পাবেন।

গোস্ট ব্রাউজার

গোস্ট ব্রাউজার! ক্রোমিয়াম ইঞ্জিনের তৈরি আরো একটি ব্রাউজার এটি। তবে এই ব্রাউজারের মূল আকর্ষণ হচ্ছে এর প্রোডাক্টিভিটি। এই ব্রাউজারটিতে একই উইন্ডোতে আপনি একের অধিক ব্রাউজার সেশন চালু করতে পারবেন এবং রান করতে পারবেন। ! এবং প্রতিটি সেশনের জন্য রয়েছৈ আলাদা Cookie jar মানে আপনি একই উইন্ডোতে একাধিক সোশাল নেটওর্য়াকে লগ ইন অবস্থায় থাকতে পারবেন।

আর প্রতিটি সেশনের ট্যাবের কালার নিজে নিজেই আলাদা হয়ে থাকবে! ব্রাউজারটি মূলত ফ্রি হলেও ফ্রি সংস্করণে এর ফিচারগুলোও লিমিটেড অবস্থায় থাকবে। ফুল সংষ্করণের জন্য আপনাকে মাসে ১০ থেকে ১৫ মার্কিন ডলার খরচ করতে হবে। আর ক্রোমিয়াম ইঞ্জিনের তৈরি বিধায় এতে আপনি ক্রোম ওয়েব স্টোরও ব্যবহার করতে পারবেন।

Level 0

আমি দেলোয়ার হোসেন দিহান। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 1 বছর 1 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 4 টি টিউন ও 0 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস