ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

সফটওয়্যার রিভিউঃ অভ্র কীবোর্ড

যারা ইউনিকোডে তৈরি বিভিন্ন বাংলা সাইট যেমন টেকটিউনস, সামহোয়্যার ইন ব্লগ, বিবর্তন ইত্যাদি সাইটে শুধু পড়েনইনা, বরং লেখালেখিও করেন, তাদের মধ্যে সিংহভাগই অভ্র কীবোর্ড সম্বন্ধে কমবেশি জানেন। তবুও এই টিউন অভ্র কীবোর্ড সম্বন্ধে আরো জানতে আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

ADs by Techtunes ADs

অভ্র কীবোর্ড আর বিজয় কীবোর্ডের মধ্যে মূল পার্থক্য হল একটি বিনামূল্যের সফটওয়্যার তথা ফ্রিওয়্যার আরেকটি বৈধভাবে ব্যবহার করতে হলে আনন্দ কম্পিউটার্স থেকে ক্রয় করতে হয়। দ্বিতীয়তঃ অভ্র কীবোর্ড ইউনিকোড সাপোর্ট করে যা সর্বশেষ বিজয় কীবোর্ড সংস্করণ ছাড়া আগের সংস্করণগুলো সাপোর্ট করে না। এছাড়াও অভ্র কীবোর্ড দিয়ে যেকোন প্রোগ্রামের ভিতর অনায়াসেই বাংলা লেখা যায়। আর যারা বিভিন্ন সাইবার ক্যাফে থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করে অভ্যস্ত, তাদের জন্যও আছে অভ্র পোর্টেবল এডিশন।

অভ্র পোর্টেবল এডিশন কী?

অভ্র পোর্টবল এডিশন হচ্ছে মূল সফটওয়্যারের একটি ক্ষুদ্র সংস্করণ যা আপনার পিসিতে দ্রুততর গতিতে ডাউনলোড হবে এবং ইন্সটল করতে Administrative Right এর প্রয়োজন হবে না। যেহেতু সাইবার ক্যাফের প্রতিটি পিসি'ই ইউজারে লগ ইন করা থাকে এবং এখানে আপনি কোন সফটওয়্যার ইন্সটল করতে পারবেন না, সেহেতু অভ্র কীবোর্ড হচ্ছে আপনার সমস্যার একমাত্র সমাধান। অভ্র কীবোর্ড পোর্টেবল এডিশন মূলত একটি আর্কাইভ যা দুই মিনিটেরও কম সময়ে ইন্সটল বা এক্সট্র্যাক্ট হয়ে যাবে এবং এটি ইন্সটল করতেও আপনাকে অ্যাডমিনিস্ট্রেটরে লগ-ইন করতে হবে না বা অ্যাডমিনিস্ট্রেটরের অনুমতি লাগবে না। প্রায় ৯ মেগাবাইটের এই ফাইলটি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন। আপনাকে অমিক্রনল্যাবের সাইটে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে থেকে ডাউনলোডের লিঙ্কে ক্লিক করুন।

অভ্র কীবোর্ডের বৈশিষ্ট্য

অভ্র কীবোর্ড এর মাধ্যমে আপনি অভ্র ফোনেটিক, অভ্র ইজি, বর্ণমালা, ন্যাশনাল (জয়িতা) ও ইউনিবিজয়ের লে-আউটে লিখতে পারবেন। লক্ষ্যণীয়, ইউনিবিজয় আর বিজয়ের মধ্যে সামান্য কিছু পার্থক্য বিদ্যমান। যারা বিজয়ের লে-আউটে টাইপ করতে পারেন এবং নতুন করে টাইপীং শিখতে চাননা, তারা এই ইউনিবিজয় ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়াও অভ্র কীবোর্ডে বাংলা মোড অন করে আপনি ব্রাউজারের অ্যাড্রেসবার থেকে শুরু করে সার্চ ইঞ্জিনের সার্চ বক্সে পর্যন্ত সবস্থানে বাংলা লিখতে পারবেন। অর্থাৎ, অভ্র ব্যবহার করলে আপনাকে অন্যান্য সফটওয়্যারের মত কপি-পেস্ট করতে হবেনা। সুতরাং আপনার টাইপীং হবে স্বাচ্ছন্দ্যময়, কাজ হবে দ্রুত।

বিজয় ও ইউনিবিজয়ের মধ্যে বিদ্যমান পার্থক্যসমূহ

হাতেগোণা কিছু পার্থক্য ইউনিবিজয় ও বিজয়ের লে-আউটের মধ্যে রয়ে গেছে। সেগুলো নিম্নরূপঃ

> Q প্রেস করে বিজয়ে ঙ আসে। কিন্তু অভ্র তে শিফট চেপে ধরে কিউ চাপলে ঙ আসে। একই ভাবে ং আনতে হলে বিজয়ে শিফট চেপে ধরে রেখে কিউ চাপতে হত যা অভ্রতে সরাসরিই আসবে। শিফট চাপতে হবে না।
> চন্দ্রবিন্দু আসবে শিফট চেপে ধরে ২ প্রেস করলে।
> ৎ আসবে শিফট চেপে ধরে রেখে ৭ চাপলে আর ঃ আসবে শিফট চেপে ধরে রেখে ৬ চাপলে।

মোটামুটি এর বাইরে আর কোন পার্থক্য ইউনিবিজয় আর বিজয়ের মধ্যে বিদ্যমান নেই।

পার্সোনাল কম্পিউটারের জন্য অভ্র পূর্ণ সংস্করণটি আজই বিনামূল্যে ডাউনলোড করে নিতে পারেন http://www.omicronlab.com থেকে।

ADs by Techtunes ADs
Level 0

আমি মো. আমিনুল ইসলাম সজীব। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 12 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 85 টি টিউন ও 202 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 6 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

উল্লেখ্য, ইউনিকোড জগতে প্রশংসনীয় অবদান রাখে সর্বপ্রথম আল্পনা নামক ইউনিকোডসমর্থিত একটি বাংলা লেখার সফটওয়্যার। বলাই বাহুল্য, একুশে টেলিভিশনের মতই উন্নয়নের নতুন মূলধারা ধরিয়ে দিয়ে আল্পনা এখন সফটওয়্যারের মহাসাগরে হারিয়ে গেছে। তবে ইটিভি উঠে এসতে পেরেছে, আল্পনা কি পারবে?

অভ্র ভালো কিন্ত প্রচুর সিস্টেম মেমরি ব্যবহার করে। এ দিক থেকে একুশে স্বাধীনতা বেস্ট। সিস্টেমের উপর চাপ কম দেয়।

এডবি তাদের প্রডাক্ট গুলোতে ইউনিকোড সাপোর্ট দিচ্ছে না। যেটা এই মুহুর্তে খুবই প্রয়োজন বাংলার জন্য।

আমিও বুঝি না এডবি এখনও তাদের সফটওয়্যার ( গ্রাফিক্স ) গুলোতে ইউনিকোড সাপোর্ট দিচ্ছে না কেন?? ফটোশপ আর ইলাস্ট্রেটরে টাইপ্রোগ্রফি নিয়ে কাজ করতে গেলে এখনও ওই আসকি ফন্ট আর সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হয়। যা আমার একদম ভাল লাগে না।

অভ্র র ফোনেটিক লেআউটটা ফাটাফাটি। তবে ইউনিজয় লেআউট ব্যবহারকারিদের জন্য একুশে স্বাধীনতাই বেস্ট।

আপনার আমাদের সকলের জন্য এই সফটওয়্যার টা খুবই কাজের।
তবে আমি ইউনি বিজয় ব্যবহার করতে গিয়ে খুব সমস্যায় পরেছি। এটা সমাধান হলেই ব্যবহার করে মজা পাওয়া যাবে।

অভ্র না থাকলে তো এই কমেন্টটা বাংলিশে করতে হত।